গুঞ্জন উড়িয়ে বিয়ের পিঁড়িতে বসছেন নেহা কক্কর !

গুঞ্জন নয়, এবার সত্যি সত্যি বিয়ের পিঁড়িতে বসতে চলেছেন বলিউডের তুমুল জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী নেহা কক্কর। ভক্তদের দ্বিধা-দ্বন্দ্ব দূর করে প্রকাশ্য আনলেন তার এবং রোহনপ্রীত সিংয়ের হলুদের বেশ কিছু ছবি। যেখানে নেহাকে তার হবু বর রোহনপ্রীত সিংয়ের সাথে প্রেমে মগ্ন থাকতে দেখা গেছে!

এসময় নেহার পরনে ছিল হলুদ লেহেঙ্গা এবং রোহনপ্রীতের পরনে ছিল কুর্তা-পাজামা ও মাথায় পাগড়ী। সেই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন দুই পরিবারে সদস্য, আত্মীয়স্বজন ও বন্ধুবান্ধবরা। এছাড়াও হলুদের আগে নেহাকে মেহেদি লাগিয়ে দেওয়ারও বেশ কিছু ছবি ও ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়াতে ভাইরাল হয়।

এদিকে কদিন আগেই প্রকাশ্যে এসেছে নেহা ও রোহনপ্রীতের গাওয়া নতুন গানের মিউজিক ভিডিও ‘নেহু দ্য বিহা’। ফলে অনেকেই ধারণা করেছিলেন আদৌ কি নেহা বিয়ে করতে যাচ্ছে নাকি এই বিয়ের নাটক গানের প্রচারণার জন্য!

সাধারণ দর্শকের চোখে এভাবেই জয়ী হয়ে ওঠেন নির্মাতা !

সংকটকালের কোনো গল্প নিয়ে সিনেমা তৈরিতে একধরণের বাড়তি পরিশ্রম থাকে একজন নির্মাতার। ব্যক্তিগত ধারণা। আমি তো সিনেমামেকার নই। কিন্তু দর্শকরাই তো পাশের জানালা দিয়ে একজন নির্মাতার পীড়ণ অনুভব করবেন। সমসাময়িক সংকটের ভেতর দিয়ে সমাজের শঠতা, প্রেম বা পরিবারের মায়া এসব একটা ছোট ছবির ভেতরে নিয়ে আসা ভীষণ কঠিন কাজ। সেই কঠিন কাজটিকেই কী নান্দনিক ভাবেই না ফুটিয়ে তুললেন অণিমেষ আইচ!

করোনায় ফ্রন্টলাইন ফাইটার ভাবনা একজন হাসপাতাল সেবিকা হিসেবেই কাজ করেন। দিন রাত মিলিয়ে শিফটিং ডিউটি। করোনার প্রকোপ বাড়লে বাসা থেকে বাধা দেয় তার বাবা। এদিকে হাসপাতালে করোনা রোগী বাড়ছে ক্রমশ। সেবা দিতে হাসপাতালেই থাকতে হবে।

করোনায় স্বাস্থকর্মীদের ঠিকঠাক যতœ না নেয়ার অভিযোগে হাসাপাতাল অফিসারের সাথে চলে বাহাস। ঠিক যেন এসময়ের হাসপাতাল সেবা নিয়ে শাহেদ কান্ড বা কিছু অনৈতিক বাস্তবতাকে মনে করিয়ে দেয়। সমকালীন সংকট ছাপিয়েও এই ধরণের চিত্র তো আমাদের অভ্যেসের ভেতরেও চলমান।

দুই কন্যা দীপা খন্দকার, ভাবনাকে নিয়ে সোলায়মান খোকার মধ্যবিত্ত যাপন। সেখানে কী দারুণ পারিবারিক বন্ধন দেখিয়েছেন নির্মাতা। এসেছে প্রেম, বড় মেয়ে দীপার একলা মায়ের সংগ্রাম, কিংবা মা হারা পরিবারে বাবার আদরে বেড়ে ওঠা দুই কন্যার স্ট্রাগল। এখানে একজন অভিনেতা সোলায়মান খোকার অসাধারণ সাবলীল অভিনয়কে আলাদাভাবে প্রশংসা না করলে অন্যায় হবে।

মধ্যবিত্তদের সংকট নিয়ে অনিমেষ এর আগেও এক দারুণ কাজ করেছিলেন ‘টু-লেট’ নামে। মধ্যবিত্তের মনোরনন বোঝা খুব কঠিন। কারণ বেদনা, প্রেম আর বোধের মানুষদের গল্প মধ্যবিত্তরাই আমাদের দেয়। এত কিছুর মিশেল নি¤œ বা উচ্চবিত্তের থাকেনা। সমাজের এই দুই স্তরের যাপিত জীবন সরল রেখার মতো। কিন্তু মধ্যবিত্ত? যেখানে আত্মসম্মান, নীতি আদর্শ থাকে প্রকট। তাই বাবার অনুরোধ স্বত্বেও ভাবনা হাসপাতাল ডিউটিতে যায়। এখানে অণিমেষের ছোট্ট একটা ডায়লগ কিন্তু তার ব্যপ্তি অনেক। ভাবনা তার বাবাকে বলছেন, ‘বাবা তুমি না মুক্তিযুদ্ধ করেছ?’ দেশের সংকটে ফ্রন্টলাইনারদের শ্রদ্ধা জানাতে এই এক লাইনই একটি বিশাল মানপত্রের সম্মান বহন করে!

এরপর ভাবনার সহকর্মীর সাথে প্রেমের বুনিয়াদ গড়তে না গড়তেই আসে মৃত্যু সংবাদ। হাসপাতালের অবহেলায় করোনা আক্রান্ত হয়েই মরতে হয় তাকে। অন্যদিকে বাইরের সমাজ হাসপাতাল কর্মীদের যে খুব একটা ভালভাবে গ্রহণ করছেনা। সেই ভয়, সেই অমানবিকতাও দেখিয়েছেন অনিমেষ খুব ছোট ছোট সংলাপে তার অল্পব্যপ্তির এই সিনেমায়। ঠিক তখন নারায়নগঞ্জে ঘটে যাওয়া আমাদের সেই স্বেচ্ছাসেবক কর্মীর কথা মনে পড়ে যায়।

এত সমকালীন চিত্রের সিনেমায় যে বিষয়টি মানুষ খোঁজে..তা হলো সুন্দর এক সমাধান। কিন্তু সে তো প্রকৃতির হাতে! নির্মাতাই বা কী করে দেবেন? আমার মনে হয় সমকালীণ সিনেমা নির্মানের এই এক সীমাবদ্ধতা। যেখানে নির্মাতা ঠিক দারুণ নাটকীয় সমাধান দিতে চাইলেও পারবেন না। কারণ যে প্লট নিয়ে ছোট সিনেমাটি তৈরি, সেই সংকট সমাজে চলমান। তবে এটা ঠিক এ ছবি আগামী সময়ের জন্য অনন্য দলিল হিসেবেও কাজ করবে।

তাই প্রচ্ছন্ন বিষাদটাই হয়ে যায় অণিমেষের উপসংহার। করোনা শরীরে বয়ে নিয়ে বোন দীপার শরীরে সংক্রমতি হয়। পরে মারা যায়। সেই অপরাধবোধ বিদ্ধ করে ভাবনাকে। করোনায় প্রেমিকের, বোনের মৃত্যুকে না ভুলতে পেওে তার আত্মহত্যাপ্রবণতাকে দারুণ যৌক্তিক মানদন্ডে এনেছেন নির্মাতা অণিমেষ আইচ। শেষে বোনের সন্তান আর বাবাকে নিয়ে জীবনে ফেরা।

তবে দীপা খন্দকার ভাবনা, আর সোলায়মান খোকার মতো পরিক্ষীত অভিনেতাদের পাশে ভাবনার প্রেমিকের চরিত্রটা যেন ক্রিকেট মাঠের সেরা পার্টনারশিপটা গড়তে পারেনি। এর বাইরে রিপন নাথের ব্যকগ্রাউন্ড স্কোর বরাবরই অসাধারণ। আর সিনেমাটোগ্রাফীতে অণিমেষ অদ্ভুত এক সাইলেন্স পছন্দ করেন বরাবর। সেটিই রেখেছেন তার অনবদ্য ক্যামেরায় সুরেলা চোখ দিয়ে। প্রতিটি দৃশ্যের সাথে যা মুগ্ধতা ছড়ায়।

আবারও প্রথম কথাতেই ফিরি। সমকালীন সংকটকে সেলুলয়েডে ধরাটা মুশকিল হলেও অণিমেষ আইচদের মতো নির্মাতারা তাদের প্রতিটি কাজের ভেতর দিয়ে একটা বোধের জাগরণ তৈরি করেন। যেখানে তাদের ‘গল্পের প্রয়োজন’ নামের বাহানায় অন্য কোনো শঠতার আশ্রয় নিতে হয় না। ছবিটি দেখার পর মনমরা থাকতে হয় অনেকক্ষণ। বারেবারে কিছু বিষাদচিত্র মুখের সামনে চলে আসে। গুণী নির্মাতারা একজন সাধারণ দর্শকের চোখে এভাবেই জয়ী হয়ে ওঠেন। অদ্ভুত! অনবদ্য এক ‘মুখ আসমান’ সৃষ্টি করে!

ওই ব্যক্তির আঙুল মুচকে দিই

কারিনা কাপুর খানের রেডিয়ো টক শো ‘ওয়াট উইমেন ওয়ান্ট’-এ সম্প্রতি জীবনের এক স্মরণীয় ঘটনা শেয়ার করলেন বলিউড তারকা তাপসী পান্নু। অভিনেত্রী বলেন, গুরুপরবের সময় আমরা গুরুদ্বারে যেতাম। তার ঠিক পাশের একটি খাবার স্টল ছিল যেখানে বাইরে থেকে আসা দর্শনার্থীদের খাবার দেওয়া হতো। জায়গাটিতে এতটাই ভিড় থাকত যে সব সময় ধাক্কাধাক্কি হতো। এর আগেও সেখানে আমার অদ্ভুত কয়েকটি অভিজ্ঞতা হয়েছিল। আমি জানতাম এ রকম ভিড়ে গেলে আবারও খারাপ কিছু একটা হতে পারে। সেভাবেই নিজেকে মানসিক ভাবে প্রস্তুত রেখেছিলাম।’

তাপসী আরও বলেন, ‘আচমকা এক ব্যক্তি আমাকে পিছন দিক থেকে খারাপ ভাবে স্পর্শ করার চেষ্টা করে। আমি বুঝলাম আবার একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটছে। তৎক্ষণাৎ আমি ওই ব্যক্তির আঙুল মুচকে দিই এবং খুব দ্রুত সেই জায়গা ছেড়ে বেরিয়ে আসি।’

পর্দায় তিনি বরাবরের সাহসিনী। লাইট-ক্যামেরা-অ্যাকশনের বাইরেও সেই একই রকম সাহসী তাপসী। অন্যায়ের বিরুদ্ধে গর্জে উঠেছেন। সাম্প্রতিককালে রিয়া চক্রবর্তীর সমর্থনে মুখ খোলায় অনেক বিরূপ মন্তব্য উঠেছে তার দিকে। কোনও কিছুকে তোয়াক্কা না করেই রিয়ার পাশে দাঁড়িয়েছেন তিনি। একই ভাবে অভিনেত্রী পায়েল ঘোষ পরিচালক অনুরাগ কাশ্যপের বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানি ও ধর্ষণের অভিযোগ আনার পর বন্ধু অনুরাগের পাশে ছিলেন তিনি। বন্ধুর কঠিন সময়ে তার সঙ্গে ছবি শেয়ার করে জানিয়েছিলেন অনুরাগই তার দেখা সব চেয়ে বড় একজন নারীবাদী মানুষ।

ব্যস্ততা বাড়ছে বাণী কাপুরের !

মাত্র কয়েকদিনে আগে লন্ডন থেকে ‘বেলবটম’ ছবির শুটিং শেষে মুম্বাই ফিরেছেন বাণী কাপুর। আশির দশকের পটভূমিকায় স্পাই থ্রিলার অ্যাকশন ধাঁচের ছবিটিতে প্রধান নারী চরিত্রে বাণীকে দেখা যাবে। হালে করোনার লকডাউন শেষে বলিউডে কর্মচাঞ্চল্য ফিরেছে। অনেক চিত্রনির্মাতা তাদের মাঝপথে স্থগিত করা কাজ আবার শুরু করেছেন। ‘বেলবটম’ ছবির শুটিং শেষে করে তিনি উড়ে গেছেন চন্দ্রিগড়ে আয়ুশ্মান খুরানার সঙ্গে নাম ঠিক না হওয়া নতুন আরেকটি সিনেমার শুটিংয়ে অংশ নেওয়া। একের পর এক নতুন সিনেমায় নামি-দামি জনপ্রিয় নায়কদের বিপরীতে অভিনয়ের ব্যস্ততা বাণীকে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে নিয়ে এসেছে হঠাৎ করেই।

বাণীর বলিউডে অভিনয় শুরু ২০১৩ সাল থেকে। প্রথম অভিনীত সিনেমা ‘শুদ্ধ দেশি রোমান্স’-এ দর্শকদের মনোযোগ আকর্ষণ করেছিলেন তিনি। এজন্য সেরা নতুন মুখের অভিনেত্রী হিসেবে অ্যাওয়ার্ড পান। ৩২ বছর বয়সী এই অীভনেত্রীর দক্ষিণী সিনেমা অঙ্গনেও পদচারণ রয়েছে। বলিউডে বিখ্যাত প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ইয়াশ রাজ ফিল্ম’র ব্যানারে তার ক্যারিয়ার শুরু। তাদের সঙ্গে ৩টি সিনেমায় অভিনয়ের চুক্তি হয়েছিল। ক্যারিয়ারের শুরুতে এরকম বড় ধরনের ব্রেক সাধারণত খুব কম নবাগত অভিনেত্রীর ভাগ্যে জোটে। গত বছর বলিউডের দুর্দান্ত অ্যাকশন সিনেমা হিসেবে বক্স অফিসে ঝড় তোলা ‘ওয়্যার’ ছবিতে প্রধান নারী চরিত্রে তার পর্দায় উপস্থিতিতে নানা চমক ছিল। নাচগানের দৃশ্যে বাণী পারফরমেন্সে দর্শক আলোড়িত হয়েছেন।

ইয়াশ রাজ ফিল্মসের ছবিতেই এতদিন বাণী কাপুরের ক্যারিয়ার আটকে ছিল। বিখ্যাত এই ব্যানারের তিনটি সিনেমায় অভিনয়ের চুক্তি শেষ হলেও তাদের আরেকটি নতুন সিনেমা ‘শমসেরা’য় অভিনয় করছেন তিনি। ব্রিটিশ ভারতে ২০০ বছর আগের পটভূমিকায় নির্মিত হচ্ছে ছবিটি। এখানে তার নায়ক রণবীর কাপুর। স্বাধীনতাপূর্ব ব্রিটিশ উপনিবেশিক শাসনামলে একজন দুর্ধর্ষ ডাকাতের স্বাধীনতাকামী হয়ে লড়াইয়ের গল্প তুলে ধরা হয়েছে নির্মাণাধীন ‘শামসেরা’ ছবিতে। এখানে একজন নর্তকীর ভূমিকায় অভিনয় করেছেন বাণী কাপুর। হালে শুটিংয়ে অংশ নেওয়া ‘বেলবটম’ এবং নাম ঠিক না হওয়া ছবিগুলোতে তার অভিনয় দর্শকদের কৌতূহলী করেছে।

গত ছয় সাত বছরে বাণীর ক্যারিয়ার খুব বেশি না এগোলেও গত বছর থেকে অনেকটা গতি পেয়েছে বলা চলে। এ বছর অপ্রত্যাশিতভাবে করোনা মহামারীর বিস্তার না ঘটলে তার কাজের ব্যস্ততা আরো বেড়ে যেত নিঃসন্দেহে বলা যায়। হিন্দি সিনেমায় নতুন প্রজন্মের অনেক সুন্দরী গ্ল্যামারাস আকর্ষণীয় মেধাবী অভিনেত্রীর ভীড়ে বাণী কাপুর নিজেকে আলাদাভাবে চেনাতে সক্ষম হয়েছেন। ফলে ইয়াশ রাজ ফিল্ম’র বাইরে অন্য ব্যানারে নতুন সিনেমা ‘বেলবটম’-এ কাজ করার সুযোগ পেয়ে ক্যারিয়ারকে আরো সমৃদ্ধ করবে সন্দেহ নেই। আগামী দিনগুলো তার জন্য আরো অনেক সমৃদ্ধি ও সাফল্যের নতুন নতুন বার্তা বয়ে আনবে আশা করা যায়।

সিঙ্গেল তকমাটা বেশি পছন্দ করি

বলিউড তারকা কিয়ারা আদভানি। খুব অল্প সময়ে বেশ সুনাম কুড়িয়েছেন তিনি। এখন পর্যন্ত কোনো ধরনের বিতর্কে না জড়িয়ে কাজ করে যাচ্ছেন। তবে সবার মত প্রেম নিয়ে গুঞ্জন তাকে ছাড়েনি। সিদ্ধার্থ মালহোতরার সঙ্গে তার প্রেম নিয়ে অনেক গুঞ্জন চলে। তবে তা নিয়ে গণমাধ্যমের সামনে কোনোকিছু শেয়ার করেনি কিয়ারা।

সম্প্রতি ভিডিও কলের মাধ্যমে ‘নো ফিল্টার নেহা’ চ্যাট শোয়ে অংশ নিয়েছিলেন কিয়ারা। এই সময় তাকে প্রেমের সম্পর্ক নিয়ে প্রশ্ন করা হয়। এই অভিনেত্রী বলেন, ‘আসলে প্রেম নিয়ে খানিকটা ধোঁয়াশা রাখাই ভালো। আর যতদিন বিয়ে না করছি। ততদিন আমি সিঙ্গেল। কারণ সিঙ্গেল তকমাটা বেশি পছন্দ করি।’

সিদ্ধার্থের প্রসঙ্গে তিনি আরো বলেন, ‘আসলে মানুষ কখন কী ভেবে রাখে সেখানে তো আমার কিছু করার নেই। সিদ্ধার্থের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে গুঞ্জন সত্য নয়।’

উল্লেখ্য, কিয়ারা বর্তমানে অপেক্ষায় আছেন তার পরবর্তী সিনেমা ‘লক্ষ্মী বোম্ব’ নিয়ে। সিনেমার একটি গান সম্প্রতি প্রকাশ পেয়েছে। যেখানে তার নতুন লুকের জন্য বেশ প্রশংসা ভাসছেন এই তারকা।

জীবনের সবচেয়ে আনন্দের সময় পার করছি : আনুশকা শর্মা

আনুশকা শর্মা ও বিরাট কোহলি মা-বাবা হচ্ছেন। জীবনের অন্যতম সেরা খবর প্রকাশ্যে আসতেই তাদের অভিনন্দন জানান ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেনন্দ্র মোদী।

বর্তমানে বিরাটের সঙ্গে দুবাইতে রয়েছেন আনুশকা ও বিরাট। মরু শহরে থেকেই একের পর এক ছবি শেয়ার করছেন বলিউডের এই অভিনেত্রী। বিরাট-অনুশকার ভালোবাসার ছবি প্রকাশ্যে আসার পর এবার সামনে এল অভিনেত্রীর বেবি বাম্পের ছবি। যেখানে বেবি বাম্প নিয়ে আলগোছে সানবাথ নিতে দেখা যায় অনুশকাকে। নিজের সোশ্যাল হ্যান্ডেলে নতুন ছবি শেয়ার করেন অনুশকা শর্মা।

অনুশকা শর্মার ওই বেবি বাম্পের ছবি প্রকাশ্যে আসতেই ভক্তরা ভালবাসা জানাতে শুরু করেন অভিনেত্রীকে। আনুশকা বলেন, ‘জীবনের সচচেয়ে আনন্দের সময় পার করছি। প্রতিদিন একটি প্রাণ আমার মধ্যে বড় হচ্ছে। আমি মা হচ্ছি। এগুলো নিয়ে সারাদিন ভাবি। বিরাটও খুব আনন্দে সময় পার করছে। অপেক্ষায় আছি আমাদের সন্তানের জন্য।’

প্রকাশ্যেই রণবীরকে বিয়ে করতে চাইলেন সারা !

বলিউডের জনপ্রিয় অভিনেতা সাইফ আলি খান। যার মেয়ে সারা আলি খানও এখন বলিউড জগতের একজন অভিনেত্রী। সম্প্রতি বাবার সামনেই রণবীর কাপুরকে বিয়ে করতে চান বলে জানান সারা। যা শুনে বেশ অবাকই হয়ে যান সাইফ। যদিও মেয়ের মনের ইচ্ছা জানার পর সরাসরি কোনো মন্তব্য করতে শোনা যায়নি সাইফ আলিকে। এদিকে রণবীরের সঙ্গে বিয়ে পাকা হয়ে আছে আলিয়া ভাটের।

চিন্তার কিছু নেই! আসল বিষয়টি হলো, ২০১৮ সালে কফি উইথ করণ-এ বাবা সাইফের সঙ্গেই শোয়ে হাজির হন সারা। সেখানে সারা কাকে বিয়ে করতে চান বলে জিজ্ঞাসা করেন করণ জোহর। যার উত্তরে রণবীর কাপুরের নাম নেন সাইফ-কন্যা। তিনি বলেন, রণবীর কাপুরকে বিয়ে করতে চান তিনি।

রণবীর কাপুরকে বিয়ের ইচ্ছা প্রকাশ করলেও কার্তিক আরিয়ানের সঙ্গে ডেট করতে চান বলে জানান সারা আলি খান। কার্তিকের সঙ্গে ডেট করলেও, রণবীরকে সরাসরি বিয়ে করে সংসার করতে চান বলেও ওই সময় মন্তব্য করেন সারা। যদিও পুরোটাই মজার ছলে। প্রসঙ্গত, কার্তিক আরিয়ানের সঙ্গে বেশ কিছুদিন সম্পর্কে জড়িয়েছিলেন সারা আলি খান। পরে তাদের বিচ্ছেদ হয়ে যায় বলে শোনা যায়

দূর্গাপূজার বিশেষ নাটকে জাপানের নাগরিক

দুর্গাপূজা উপলক্ষে এনটিভিতে দশমীর দিন প্রচারিত হবে বিশেষ নাটক ‘ভৈরবী’। রাত ৯টা ৩০ মিনিটে এটি প্রচারিত হবে।

নাটকটি পরিচালনা করেছেন গৌতম কৈরী। নাটকটিতে কেন্দ্রীয় চরিত্রে মনোজ প্রামাণিকের বিপরীতে অভিনয় করেছেন জাপানী নাগরিক মে ওয়াতানবি। নাটকটিতে মনোজের চরিত্রের নাম নীল এবং মে ওয়াতানবির চরিত্রের নাম আঁকি।

নাটকের গল্পে দেখা যায়, পাঁচ বছর পর দেশে ফিরেছে নীল। জাপানে গিয়েছিল পিএইচডি করতে। মাঝে আর দেশে আসতে পারেনি। তাই তার আগমন উপলক্ষে বাড়িতে উৎসবের আমেজ। ধান দূর্বা নিয়ে বাড়িতে রঙের শেষ নেই। কিন্তু গাড়ি থেকে নীল যখন নামে, দেখা যায় তার সঙ্গে একজন জাপানি মেয়ে। তাকে ছেলের স্ত্রী ভেবে মা সেখানেই অজ্ঞান!

আসলে ঘটনা কিন্তু তা নয়। আকি নামে এই মেয়ের সঙ্গে নীলের পরিচয় জাপানে। নীল তাকে দীর্ঘ পাঁচ বছর ধরে বাংলা শিখিয়েছে। আঁকি এই দেশে এসেছে সাংস্কৃতিক ভিন্নতা নিয়ে গবেষণা করতে। নীলের মুখে দুর্গাপূজার কাহিনী শুনে শুনে বাংলাদেশে আসার আগ্রহ জন্মে আকির।

অথচ বাংলাদেশে এসে আকি আবিষ্কার করে এক ভিন্ন পরিবেশ। ওর মা মারা গিয়েছে সেই ছোট বেলায়। নিউক্লিয়ার ফ্যামিলিতে অভ্যস্ত ও ব্যক্তিকেন্দ্রিক সমাজ ব্যবস্থায় আকি বুঝতে পারেনি পারিবারিক বন্ধনের গুরুত্ব। পরিবারে মায়ের গুরুত্ব ও ভূমিকা।

গবেষণা করতে এসে আকি পরিচিত হয় এক অন্যরকম মানবিক পরিবারের। পূজার উৎসব শেষে দশমীর দু’দিন পর আকি চলে যায় নিজ দেশে। যাবার সময় সাথে করে নিয়ে যায় এক অনন্য অভিজ্ঞতা।

দুর্গার কাহিনী শুনে, বিশেষত্ব শুনে ওর কাছে মনে হয়, পরিবারে একজন মায়ের ভূমিকা দুর্গার চেয় কম না। তারা যেভাবে আদরের চাদরে পরিবারকে আগলে রাখে, সবদিক সামলায়, আমাদের পরিবারের মায়েরা একেকজন দুর্গা। এভাবেই এগিয়ে যায় নাটকটির গল্প।

অভিনয় প্রসঙ্গে মনোজ প্রামাণিক বলেন, ভিনদেশী অভিনেত্রীর সঙ্গে অভিনয় করতে কিছুটা কষ্ট হলেও অভিনয়ের অভিজ্ঞতা খারাপ নয়। ওয়াতানবি বাংলা ভাষায় অভিনয় করেছেন। যা উপভোগ্য হবে। এছাড়া নাটকটির গল্প বেশ গোছানো। সব মিলিয়ে নাটকটি দর্শকের ভালো লাগবে।

বয়সকে বেঁধে রেখেছেন টম ক্রুজ !

১৯৮১ সালে মুক্তি পাওয়া ‘এন্ডলেস লাভ’ ছবিতে দর্শক যে টম ক্রুজকে দেখেছিলেন, ঠিক ৩০ বছর পর ২০২১ সালের ১৯ নভেম্বর সেই নায়কটিকেই দেখতে পাবেন ‘মিশন ইমপসিবল-৭’ ছবিতে।

ভাবছেন, ক্রুজের মধ্যে কি কোনো পরিবর্তন আসেনি? এসেছে। ৫১টি ছবিতে অভিনয়ের পর তার পরিপক্বতা কোন পর্যায়ে যেতে পারে, সেটি অনুমান করতেই পারেন। কিন্তু চেহারা, আর গড়ন? এক্ষেত্রে বয়সের ছাপ এড়ানো যায় আর কতটুকুই! তবু সামর্থ্যরে দিক থেকে তিনি এখনও সেই প্রথম ছবির ‘বিলি’ চরিত্রের চেয়ে কোনো অংশেই কম নন।

বরং বলতে পারেন, বিলির চেয়ে এমআইয়ের ‘ইথান হান্ট’ আরও শক্তিশালী, আরও পরিণত। এই তো গত ১০ অক্টোবর ইতালির রোম শহরের রাজপথে যেভাবে মোটরবাইক চালিয়ে স্টান্ট দিচ্ছিলেন, এখনকার অনেক তরুণের পক্ষে সেটি করা সম্ভব নয়। কারণ তাকে তো পুলিশ কার তাড়া করছিল। দ্বিতীয়বার এই ঝুঁকিপূর্ণ স্টান্টের জন্য মানসিকভাবে তৈরি থাকার কথা জানালেও পরিচালক ক্রিস্টোফার ম্যাককোয়ারি এক টেকেই সন্তুষ্ট।

৫৮ বছর বয়সী এ কিংবদন্তি অভিনেতা শুটিংয়ে এত দ্রুতগতিতে বাইক চালাচ্ছিলেন, দেখে যে কোনো দর্শক আতঙ্কগ্রস্ত হতে পারতেন। অথচ তিনি ছিলেন স্বাভাবিক, ‘হাই অকটেন পারফর্মার’ তকমা তো আর তার গায়ে এমনি এমনি লাগেনি!

একইভাবে এ ছবির শুটিং হয়েছে নরওয়ের একটি রেললাইনের ওপর। পাহাড়ঘেরা লাইনের ওপর দিয়েই দ্রুতগতিতে এগিয়ে যাচ্ছিল ট্রেনটি। চলন্ত ট্রেনের ওপর মারধরের স্টান্ট দিচ্ছিলেন টম ক্রুজ। এই অ্যাকশন দৃশ্যের স্টিলসহ ট্রেনের ভিডিও ভাইরাল হয়েছে ইন্টারনেট দুনিয়ায়।

২০২১ সালের প্রথমদিকে মুক্তির তারিখ নির্ধারিত ছিল ছবিটির। চলতি বছরের ২০ ফেব্রুয়ারি থেকে রোমে টানা ৪০ দিনের শুটিং নির্ধারিত ছিল। কিন্তু করোনা মহামারীর কারণে বাধাগ্রস্ত হয় শুটিং।

নতুন শিডিউল অনুযায়ী সেপ্টেম্বর ও অক্টোবরে তারা ছবির কিছু শুটিং সম্পন্ন করেন। কাজের গতি ও অগ্রগতি দেখে পরবর্তীতে ছবি মুক্তির নতুন তারিখ নির্ধারণ করে প্যারামাউন্ট পিকচার্স। টমের সঙ্গে এ ছবিতে আরও অভিনয় করছেন- ভিঙ রেইমস, সাইমন পেগ, রেবেকা ফারগুসন, ভেনেসা কারবি, হেলে অটওয়েল, ইসাই মরেলস প্রমুখ। এদিকে অন্য একটি ছবির শুটিংয়ের জন্য টম ক্রুজ যাবেন মহাশূন্যে। সঙ্গে যাবেন পরিচালক ডগ লিমান। ইন্টারন্যাশনাল স্পেইস স্টেশনে তাদের যাওয়ার বিষয়ে ইতোমধ্যে নাসা কর্তৃপক্ষের অনুমোদনও পেয়ে গেছেন তারা।

ফের আলোচনার কেন্দ্রে সারা আলি খান

আপনি কী পরছেন কিংবা কী করছেন, তা নেটদুনিয়ায় প্রকাশ হলেই হল। মুহূর্তের মধ্যেই আপনি হয়ে উঠতে পারেন নেটদুনিয়ায় চর্চার বিষয়। কপালে জুটতে পারে প্রশংসা। তবে কটাক্ষের শিকারও হতে পারেন। ঠিক যেমন একটি পুরানো ফটোশুটের জন্য ফের নেটদুনিয়ায় আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে চলে এসেছেন সারা আলি খান।

গত বছর একটি বিখ্যাত ম্যাগাজিনের জন্য ফটোশুট করেন সারা। ওই ছবিতে লাল, কমলা রঙ মিলিয়ে একটি শাড়িতে দেখা গেছে সারাকে। তবে শাড়িটি একটু অন্যরকম। কারণ শাড়ির দু’টি পাড়ে কাপড় দিয়ে কুচি দেওয়া রয়েছে। যাকে রাফলড শাড়ি বলে। আবার ব্লাউজেও ঠিক কাঁধের কাছে রয়েছে কুচি দেওয়া। আবু জানি এবং সন্দীপ খোসলার ক্যান্ডি কালেকশনের এই শাড়িটি যে বেশ অন্যরকম, তা বলাই বাহুল্য।

পুরনো ওই ছবিটি নিয়েই নেটদুনিয়ায় চলছে জোর চর্চা। আর যা তথাকথিত নয়, তা নিয়ে আলোচনা করাই যে নেটিজেনদের একাংশের কাজ। ঠিক সেরকম চিন্তাভাবনার অনেকেই বলছেন, এই শাড়ি পরে মোটেও ভাল লাগছে না সারাকে। ‘হাস্যকর’ বলে কটাক্ষ করতে ছাড়ছেন না কেউ কেউ। অনেকেই আবার ওই শাড়িটিকে নটরাজ পেন্সিলের সঙ্গে তুলনা করেছেন। তবে এই ইস্যুতে দ্বিধাবিভক্ত নেটদুনিয়া। কেউ কেউ অবশ্য শাড়িটির বেশ প্রশংসা করেছেন। শাড়িটি পরে সারাকে সুন্দর দেখাচ্ছে বলতেও দ্বিধা করেননি তারা।